৪ ব্যবসায়ীকে জিজ্ঞাসাবাদ, হাজির হননি ফালুসহ ৫ জন

0
128

অনিয়ম ও দুর্নীতির মাধ্যমে ৮ মিলিয়ন মার্কিন ডলার দুবাইয়ে পাচারের অভিযোগ অনুসন্ধানে আরএকে গ্রুপের চার পরিচালককে জিজ্ঞাসাবাদ করছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)।

দুদকের প্রধান কার্যালয়ে বুধবার সোয়া ১১টা থেকে পরিচালক সৈয়দ ইকবাল হোসেনের নেতৃত্বে একটি টিম তাদের জিজ্ঞাসাবাদ করছে। এদিকে বিএনপি নেতা মোসাদ্দেক আলী ফালুসহ ৯ ব্যবসায়ীকে বুধবার জিজ্ঞাসাবাদের জন্য তলব করেছিল দুদক। দুদকের তলবে সকালে হাজির হন চার ব্যবসায়ী। তবে আসেননি ফালুসহ ৫ জন।

দুদকের জনসংযোগ কর্মকর্তা প্রনব কুমার ভট্টাচার্য্য এসব তথ্য নিশ্চিত করেন।

তিনি বলেন, আজ ৯ জনের আসার কথা ছিল। তার মধ্যে চারজন জিজ্ঞাসাবাদে হাজির হয়েছে। তাদেরকে দুদকের পরিচালক ও তদন্ত কর্মকর্তা সৈয়দ ইকবাল হোসেনের নেতৃত্বে জিজ্ঞাসাবাদ করছে। অন্যদের না আসার ব্যাপারে জানি না।

দুদকের জিজ্ঞাসাবাদের মুখোমুখি হয়েছে আরএকে পেইন্টস ও আরএকে কনজ্যুমার প্রোডাক্টসের পরিচালক কামারুজ্জামান, আরএকে পাওয়ার লিমিটেডের পরিচালক মাকসুদুল করিম, আরএকে কনজ্যুমার প্রোডাক্টসের দুই পরিচালক মোহাম্মদ আমির হোসেন ও এম এ মালেক।

অপর দিকে দুদকের জিজ্ঞাসাবাদে যারা আসেননি তারা হলেন, বিএনপি নেতা ফালু, আরএকে পেইন্টসের পরিচালক শায়লিন জামান আকবর, রোজা প্রোপার্টিজের পরিচালক আশফাক উদ্দিন আহমেদ, আরএকে সিরামিকসের স্বতন্ত্র পরিচালক ফাহিমুল হক এবং স্টার সিরামিকসের পরিচালক প্রতিমা সরকার।

এর আগে গত সোমবার দুদকের পরিচালক সৈয়দ ইকবাল হোসেনের সই করা পৃথক চিঠির মাধ্যমে তাদেরকে বুধবার হাজির হওয়ার নির্দেশনা দেন। গত ১৪ আগস্ট মোসাদ্দেক আলী ফালুকে প্রথম দফায় তলব করলে তিনি তার প্রতিষ্ঠানের কোম্পানি সচিবের মাধ্যমে সময়ের আবেদন করেছিলেন। ওই আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে নতুন করে সময় দিয়ে আজ আবারো তলব করে দুদক।

দুদক সূত্রে জানা যায়, অভিযুক্ত ৯ জন ৮ মিলিয়ন ডলার সমমূল্যের প্রায় ৬৫ কোটি টাকা দুবাইয়ে পাচার করে অফশোর কোম্পানি খুলে বিনিয়োগ, দুবাইয়ে আরো শত কোটি টাকা জ্ঞাত আয়বহির্ভূত সম্পদ অর্জনের অভিযোগ রয়েছে। দুদকের অনুসন্ধানেও এর প্রাথমিক সত্যতা পাওয়া গেছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here