নবম শ্রেণীর ছাত্রী খুন, মা ও ভাইকে কুপিয়ে জখম

0
193


নরসিংদীর শিবপুরে ফাতেমা আক্তার (১৫) নামের এক ছাত্রীকে কুপিয়ে হত্যা করেছে ডাকাত সদস্যরা। সোমবার দিবাগত রাতে উপজেলার মুনসেফেরচর এলাকায় প্রবাসী মতিউর রহমানের বাড়িতে এ ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় নিহত ফাতেমার মা রাজিয়া বেগম ও ভাই রায়হানকেও কুপিয়ে জখম করেছে ডাকাতরা। নিহত ফাতেমা মুনসেফেরচর এলাকার মৃত শহীদুল হক গাজীর মেয়ে। সে স্থানীয় শাষপুর কাজী মফিজ উদ্দিন উচ্চ বিদ্যালয়ের নবম শ্রেণীর ছাত্রী।

পুলিশ, স্থানীয় লোকজন ও নিহতের পরিবারের লোকজনের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, মৃত শহীদুল হক গাজীর তিন মেয়ে এক ছেলে। ১০ বছর আগে তিনি মারা যাওয়ার পর বাড়ির বড় মেয়ে শাহিনা বেগমের স্বামী প্রবাসী মতিউর রহমান তাঁদের ভরণ পোষনের দায়িত্ব নেন। তাঁরা সবাই মতিউর রহমানের বাড়িতেই থাকতেন।

সোমবার দিবাগত রাত আনুমানিক দেড়টার দিকে ২০/২৫ জনের একদল ডাকাত বাড়ির কলাপসিবল গেইটের তালা ভেঙ্গে ভেতরে প্রবেশ করে। এসময় বাড়ির লোকজনের ডাক চিৎকারে আশপাশের লোকজন জড়ো হওয়ার চেষ্টা করলে ডাকাত সদস্যরা এক ভরি স্বর্ণালংকার ও ৪ টি মোবাইল সেট নিয়ে চলে যাওয়ার সময় ফাতেমার ভাই রায়হান মিয়া এক ডাকাতকে ধরে ফেলে। এসময় ডাকাতদলের অন্য সদস্যরা রায়হানকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে মাথায় কোপ মারে। এসময় ভাইকে বাঁচাতে গেলে ফাতেমা আক্তারকেও পেটে ছুরি দিয়ে আঘাত করে। এঘটনা দেখে মা রাজিয়া বেগম এগিয়ে আসলে তাঁকেও ছুরি দিয়ে আঘাত করা হয়। এঘটনার পরে স্থানীয় লোকজন হতাহতদের দ্রুত ঘটনাস্থল থেকে উদ্ধার করে নরসিংদী জেলা হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক ফাতেমা আক্তারকে মৃত ঘোষনা করেন। মা রাজিয়া আক্তারের অবস্থা গুরুতর হওয়ায় তাঁকে প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে ঢাকা মেডিকেল হাসপাতালে স্থানান্তরিত করা হয়।

এ ব্যাপারে স্থানীয় মনির হোসেন বলেন, ‘তাদের আর্থিক আর্থিক অবস্থা তেমন ভাল না। তারপরও কেন যে ডাকাতরা তাদের বাড়িতে হানা দিল? ’

শিবপুর মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবুল কালাম আজাদ বলেন, ‘নিহতের লাশ ময়না তদন্তের জন্যে নরসিংদী সদর হাসপাতালে মর্গে পাঠানো হয়েছে। এ ঘটনায় ডাকাতদের সনাক্ত ও গ্রেপ্তারে আমাদের অভিযান চলছে। এ ঘটনায় দুজন আহত হয়েছেন। তাদের পরিবারের পক্ষ থেকে মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে।’

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here