আজ প্রতিপক্ষ শ্রীলঙ্কা, থকছে বৃষ্টির আশঙ্কা

0
142

যেন এক সন্ধিক্ষণের অপেক্ষায় বাংলাদেশ। গত দুই ম্যাচে ইংল্যান্ড ও নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে হার। বিশেষ করে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে হারটা ছিল ভীষণ দৃষ্টিকটু। সেমিফাইনালে খেলতে হলে আজকের ম্যাচটা প্রায় ‘ডু অর ডাই’। লঙ্কানদের বিরুদ্ধে কাক্সিক্ষত জয় তুলে নিতে মরিয়া টাইগাররাও। বিকাল সাড়ে ৩টায় খেলা শুরু হবে ব্রিস্টলে।

যথারীতি বৃষ্টির শঙ্কা থাকছেই। এবারের বিশ্বকাপে এটাই যেন দলগুলোর বড় শত্রু। বৃষ্টির তাণ্ডবে পাকিস্তান-শ্রীলঙ্কা ম্যাচে টসই হতে পারেনি। দক্ষিণ আফ্রিকা-ওয়েস্ট ইন্ডিজ ম্যাচ শুরু হলেও থেমে গেছে অষ্টম ওভারে। কাল দক্ষিণ আফ্রিকা-ওয়েস্ট ইন্ডিজের ম্যাচও ভেসে গেছে বৃষ্টিতে। আজ বাংলাদেশ-শ্রীলঙ্কা লড়াইয়ের সামনেও বৃষ্টির চোখ রাঙানি।

জিততে গেলে ব্যাটিং-বোলিংয়ে ভালো করার বিকল্প নেই মাশরাফিদের। কিন্তু এই মুহূর্তে বাংলাদেশের সবচেয়ে দুচিন্তার জায়গা ছন্দহীন বোলিং। ইংল্যান্ডের বিপক্ষে বাংলাদেশের কোনও বোলারই ভালো প্রতিরোধ গড়তে পারেননি৷ পেসারদের পারফরম্যান্স নিয়েই চিন্তাটা বেশি। সোফিয়া গার্ডেনসের উইকেটে বাড়তি একজন পেসার নেওয়ার আলোচনা শোনা গেলেও শেষ পর্যন্ত হয়নি। তবে লঙ্কানদের বিপক্ষে রুবেল হোসেনের প্রথমবার মাঠে নামার জোর সম্ভাবনা রয়েছে।

মাশরাফি তাই আবহাওয়া নিয়ে ভীষণ চিন্তিত। সংবাদ সম্মেলনে বলেছেন, ‘ওভার কমে গেলে আমাদের জন্য সমস্যা হবে। তবে যা-ই হোক, সবকিছুর জন্য প্রস্তুত থাকতে হবে। আমরা অবশ্য পুরো ম্যাচই খেলতে চাই। ম্যাচ যদি একেবারেই না হয় তাহলে আমাদের জন্য সমীকরণ অনেক কঠিন হয়ে যাবে। শেষ দুই ম্যাচের অন্তত একটি জিতলে হয়তো এতটা কঠিন পরিস্থিতিতে পড়তে হতো না। ম্যাচটা হওয়া তাই খুবই জরুরি আমাদের জন্য। আমরা চাই, ম্যাচটা যেন মাঠে গড়ায়।’

আইসিসি র‌্যাঙ্কিং, দলীয় শক্তি ও সম্প্রতি পারফরম্যান্স সব বিচারেই লঙ্কানরা পিছিয়ে। তাই ওই ম্যাচটাকে ভীষণ গুরুত্বের সঙ্গে নিচ্ছে বাংলাদেশ। যে করেই হোক আজকের খেলায় জিতেই মাঠ ছাড়তে চায় টিম বাংলাদেশ।

মিরাজ জানিয়েছেন, শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে জয় দিয়ে ঘুরে দাঁড়াতে দৃঢ়প্রতিজ্ঞ তারা, ‘শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে ম্যাচটা আমাদের জন্য খুব গুরুত্বপূর্ণ। আমাদের শক্তিশালীভাবে ফিরে আসতে হবে। এটা নিশ্চিত করতে হবে, আমরা আমাদের সেরাটাই দেব। আমরা নিজেদের মধ্যে কথাবার্তা বলে কেবল আগামী ম্যাচগুলোর দিকেই নজর রাখব। কারণ, যে তিনটি ম্যাচ খেলেছি সেগুলো এখন অতীত।’

তিন ম্যাচে বাংলাদেশের পয়েন্ট এখন ২। তার মানে অবশ্যই সব শেষ নয়। এই বিশ্বকাপের শুরুতেই একটা হিসাব মোটামুটি সবার কাছে গ্রহণযোগ্যতা পেয়ে গেছে। সেমিফাইনাল নিশ্চিত করতে হলে ৬টি জয় লাগবে। তা-ই যদি হয়, তাহলে বাংলাদেশের সামনে সমীকরণটা যথেষ্টই কঠিন। বাকি ছয় ম্যাচে পাঁচটি জয় পেতে বাংলাদেশ দলকে ছাড়িয়ে যেতে হবে আগের সব সাফল্য। ছয়টি জয়ই যে পেতে হবে, কে তা বলতে পারে! পাঁচ জয়ও কেটে দিতে পারে সেমিফাইনালের টিকিট। কঠিন, কিন্তু তাই বলে একেবারে অসম্ভব

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here