এটা কোনো যুদ্ধ নয়: ওয়াসিম আকরাম

0
134

ভারত-পাকিস্তান ক্রিকেট ম্যাচ মানেই এক অলিখিত যুদ্ধ। মাঠ ও মাঠের বাইরে উত্তপ্ত থাকবে পরিবেশ এটাই যেন রীতি। স্বাভাবিকভাবেই বিশ্বকাপের মতো বড় আসরে দুই দলের মুখোমুখি হওয়া নিয়ে শুরু হয়েছে কাঁদা ছোঁড়াছুঁড়ি। এমনকি খেলা সম্প্রচারের দায়িত্বে থাকা টেলিভিশন চ্যানেলগুলো বিজ্ঞাপন বানিয়ে বাড়িয়ে দিচ্ছেন এই উত্তেজনা। এই অবস্থায় দুই দেশের ভক্তদের শান্ত থাকার আহ্বান জানিয়েছেন পাকিস্তানের কিংবদন্তী বোলার ওয়াসিম আকরাম।

পাকিস্তান-ভারত দ্বৈরথকে ‘বিশ্বকাপের সবচেয়ে বড় ম্যাচ’ আখ্যা দিলেন ধারাভাষ্যকার হিসেবে বর্তমানে ইংল্যান্ডে অবস্থান করা ওয়াসিম। কিন্তু এ ম্যাচ নিয়ে সমর্থকদের মধ্যে আবেগ পৌঁছেছে অন্য মাত্রায় এবং দুই দেশের বর্তমান রাজনৈতিক সম্পর্কও উত্তেজনাপূর্ণ। ওয়াসিম আহ্বান জানিয়েছেন, রাজনৈতিক উদ্দেশ্যে ব্যবহার না করে ম্যাচটি সবার উপভোগ করা উচিত। তার কথায়, ‘এর চেয়ে বড় ম্যাচ হতে পারে না। বিশ্বকাপে খেলবে ভারত ও পাকিস্তান, যাদের শত কোটি সমর্থক, তাই আমি দুই দেশের সমর্থকদের আহ্বান জানাব, যেন তারা ম্যাচটি উপভোগ করেন এবং শান্ত থাকেন। এক দল জিতবে, অন্য দল হারবে; একে ভালোভাবে গ্রহণ করেন এবং কোনোভাবেই যুদ্ধ হিসেবে নেবেন না। যারা একে যুদ্ধ হিসেবে দেখছেন, তারা কোনোভাবেই ক্রিকেটের ভালো সমর্থক নন।’

বহুল প্রতীক্ষিত এই লড়াইয়ের বেশ আগে থেকেই চলছে মাঠের বাইরের যুদ্ধ। কথার যুদ্ধও কম হচ্ছে না। ভিডিও চ্যাটে সেটা করে দেখালেন শেবাগ ও শোয়েব। একসময় ব্যাট হাতে শোয়েবের গতি সামলানো সাবেক ভারতীয় ওপেনার তার দলের জয় ছাড়া অন্য কিছু দেখছেন না। শেবাগের কাছে সাবেক পাকিস্তানি পেসারের প্রশ্ন ছিল, ‘টস ও অন্যান্য বিষয় বিবেচনা করে পরের ম্যাচ নিয়ে তুমি কী ভাবছো?’

সাবেক ব্যাটসম্যানের সহজ উত্তর, ‘আমার কোনো দিক থেকেই বিশ্বাস হয় না ১৬ তারিখ পাকিস্তান হারাতে পারবে ভারতকে।’

যদিও শেবাগকে ইয়র্কার দিতে ভুল হলো না শোয়েবের। গতিদানব নিজ দেশের পক্ষে ধরলেন বাজি, ‘আমার মনে হয়, যদি পাকিস্তান টস জেতে, তাহলে তারা জিতবে। তা ছাড়া এই টুর্নামেন্টের সবারই সুযোগ আছে।’

এই ম্যাচে গ্যালারিতে উপচেপড়া ভিড় হবে, সেটা বলা বাহুল্য। গতকাল শনিবার এক সাক্ষাৎকারে ক্রিকেট বিশ্বের আগ্রহের কেন্দ্রবিন্দুতে থাকা এই দ্বৈরথ নিয়ে পাকিস্তান দলের প্রধান নির্বাচক ইনজামাম বলেছেন, ‘যখন ভারত আর পাকিস্তান বিশ্বকাপে একে-অপরের মুখোমুখি হয়, তখন সেটা হয়ে যায় ফাইনালের আগে একটি ফাইনাল। এই ম্যাচ নিয়ে সবসময় লোকজনের মধ্যে উত্তেজনা কাজ করে। স্টেডিয়ামের ধারণক্ষমতা ২৪ হাজার, কিন্তু এই ম্যাচের টিকিট কিনতে চেয়েছে ৮ লাখ দর্শক। এ থেকে বোঝা যায়, কত বড় ম্যাচ এটা।’

বিশ্বকাপে পাকিস্তান কখনো ভারতকে হারাতে পারেনি। কিন্তু এবার সেই ধারা দল ভাঙতে পারবে বলে মনে করেন ইনজামাম। নির্বাচক প্রধান বলেছেন, ‘ভারত-পাকিস্তান ম্যাচে অতীত পারফরম্যান্স দিয়ে কিছু যায় আসে না। এটা নির্ভর করে ম্যাচের দিন কে ভালো পারফর্ম করছে তার ওপর। আমি আশা করি, পাকিস্তান বিজয়ী হবে এবং লোকজন মানসম্মত একটা খেলা উপভোগ করবে।’

পাকিস্তানকে শুভকামনা জানিয়ে তিনি বলেছেন, ‘এই টুর্নামেন্টে পাকিস্তান একটি ম্যাচ জিতেছে। আশা করি, দলের ভাগ্য পাল্টে যাবে। পাকিস্তান বিশ্বকাপে ভারতকে কখনো হারাতে পারেনি। নিঃসন্দেহে চাপ তাদের ওপর থাকবে। তবে ভালো পারফর্ম আপনাকে তৃপ্ত করতে পারে।’

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here