২ প্রকল্পে ২৩৭ কোটি ডলার ঋণ চুক্তি হবে

0
166

প্রধানমন্ত্রীর আসন্ন চীন সফরে বিদ্যুতের দুই প্রকল্পে ২৩৭ কোটি ডলারের ঋণ চুক্তি সই হবে। ডিপিডিসি অর্থাৎ রাজধানী ও এর আশপাশ এলাকায় বিদ্যুৎ নেটওয়ার্ক ব্যবস্থা সম্প্রসারণ ও শক্তিশালীকরণ প্রকল্পে ১৪০ কোটি ২৯ লাখ ডলার ঋণ দেবে দেশটি। এ ছাড়া বিদ্যুৎ বিতরণ গ্রিডলাইন শক্তিশালীকরণ প্রকল্পে ঋণ পাওয়া যাবে ৯৭ কোটি ডলার। অর্থনৈতিক সম্পর্ক বিভাগ (ইআরডি) সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

ইআরডি কর্মকর্তারা জানান, প্রধানমন্ত্রী আগামী ১ থেকে ৪ জুলাই চীন সফর করবেন। এ সময় ঋণ চুক্তি সই হবে। তবে প্রধানমন্ত্রীর সফরকে কেন্দ্র করে আরও একটি বা দুটি প্রকল্পের ঋণ গ্রহণের প্রস্তুতি দ্রুত শেষ করতে চায় সরকার। এ লক্ষ্যে দেশটির সঙ্গে আলোচনা চলছে। ২০১৬ সালে চীনের প্রেসিডেন্ট শি জিনপিংয়ের বাংলাদেশ সফরের সময় দেশটির সঙ্গে ২৭ প্রকল্পে সাড়ে ২২ বিলিয়ন ডলার ঋণের সমঝোতা (এমওইউ) হয়। কিন্তু বিভিন্ন জটিলতায় ঋণ প্রক্রিয়া বিলম্বিত হয়। প্রধানমন্ত্রীর সফরে মোট ৭ প্রকল্পে ঋণের পরিমাণ দাঁড়াতে পারে ৬৬৩ কোটি ডলার। এ অবস্থায় প্রধানমন্ত্রীর আসন্ন চীন সফরকে সর্বোচ্চ গুরুত্ব দেওয়া হচ্ছে।

জানা গেছে, ২০১৬ সালে চীনের সঙ্গে স্বাক্ষরিত সমঝোতা স্মারকে ঋণের শর্তাবলির বিষয়ে সুস্পষ্টভাবে উল্লেখ যে, পাঁচ প্রকল্পে ঋণের সুদহার ২ শতাংশ। কিন্তু এ বছর নির্ধারিত বিদ্যুতের এই দুই প্রকল্পে সুদহার বেড়ে হচ্ছে ৩ শতাংশ। এর সঙ্গে শূন্য দশমিক ২৫ শতাংশ ব্যবস্থাপনা ফি এবং শূন্য দশমিক ২৫ শতাংশ কমিটমেন্ট ফি দিতে হবে। চীন সাধারণত দুই প্রকার ঋণ দেয়। এর একটি হলো- গভর্নমেন্ট কনসেশনাল লোন (জিসিএল)। অন্যটি প্রিফারেন্সিয়াল বায়ার্স ক্রেডিট (পিবিসি)। উভয় ঋণের সুদহার ধরা ছিল ২ শতাংশ। কিন্তু এ বছর ঋণ চুক্তির জন্য নির্ধারিত দুই প্রকল্পে ৪ দশমিক ৫ শতাংশ হারে সুদ দাবি করে দেশটি। তবে অর্থনৈতিক সম্পর্ক বিভাগের ( ইআরডি) সঙ্গে আলোচনা করে অবশেষে জিসিএল ঋণে সুদহার ২ শতাংশ এবং পিবিসি ঋণের সুদহার বাড়িয়ে ৩ শতাংশ করা হয়েছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here