‘যুদ্ধাপরাধী’ হামদর্দের ইউছুফ হারুনের বিচার দাবি (ভিডিও)

0
155

যুদ্ধাপরাধী’ হামদর্দের ইউছুফ হারুনের বিচার দাবিতে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলন শুরুর আগেই বৈশাখি টেলিভিশনের সাংবাদিক পরিচয় দানকারী মুকুল একটি প্রশ্নপত্র তৈরি করে সম্মেলনে উপস্থিত সকল সাংবাদিকদের কাছে তা বিতরন করেন। এ বিষয়ে জাতে চাইলে তিনি সাংবাদিকদের উপর চড়াও হন।

এদিকে তখনও সংবাদ সম্মেরন শুরু হয় নি। সংবাদ সম্মেলনের আয়োজক ড. শাহ সুফি শামস তার নির্ধারিত আসনে বসা মাত্রই একদল বহিরাগত ক্যাডার (শিবির) স্লোগান দিতে দিতে হলরুমে প্রবেশ করে সম্মেলন পন্ড করার চেষ্টা করেন। সাংবাদিকরা তার পরিচয় জানতে চাইলে কোন উত্তর না দিয়ে তারা পালিয়ে যায়।

পরে হামদর্দের বর্তমান ব্যবস্থাপনা পরিচালক ইউছুফ হারুন ভূইয়া একাত্তরে যুদ্ধাপরাধের সঙ্গে জড়িত ছিলেন। ইউছুফ হারুনের বিচার ও সর্বোচ্চ শাস্তির দাবিতে রবিবার (২২ সেপ্টেম্বর) সকাল ১১টার দিকে ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটিতে (ডিআরইউ) সংবাদ সম্মেলন করেন লিগ্যাল এইড অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট ফাউন্ডেশনের উপদেষ্টা ড. সুফি সাগর সামস।

সংবাদ সম্মেলনের শুরুতেই হামদর্দের ব্যানার নিয়ে একদল ব্যক্তি ডিআরইউ মিলনায়তনে প্রবেশ করেন। সাংবাদিকদের হাতে তারা একটি লিখিত বক্তব্য ধরিয়ে দিয়ে সাগর সামসকে নানা প্রশ্ন করতে বলেন। সাগর সামসকে মারধর করতেও এগিয়ে যান ব্যানারধারী ব্যক্তিরা। তখন পরিস্থিতি উত্তপ্ত হয়ে ওঠে।

সাংবাদিক পরিচয়ে আরেক দল লোককে তাদের সঙ্গে যোগ দিতে দেখা যায়। পরে উপস্থিত বিভিন্ন মিডিয়ার সাংবাদিক ও ডিআরইউ’র কর্মচারীদের হস্তক্ষেপে পরিস্থিতি শান্ত হয়। সুফি সাগর সামস এ ঘটনার জন্য ইউছুফ হারুনকে দায়ী করে বলেন, ‘সন্ত্রাসী হামলা চালিয়ে ইউছুফ হারুনের যুদ্ধাপরাধ নিয়ে কথা বলা বন্ধ করা যাবে না।

প্রসঙ্গত, সাগর সামসের অভিযোগের সূত্র ধরে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক) ইউছুফ হারুনের অবৈধ সম্পদের অনুসন্ধান করছে। দুদক ইউছুফ হারুনকে জিজ্ঞাসাবাদও করেছে। ধর্ম মন্ত্রণালয় ইউছুফ হারুন ও হামদর্দের অনিয়ম, দুর্নীতি নিয়ে তদন্ত কমিটি গঠন করেছে।

সংবাদ সম্মেলনে সাগর সামস বলেন, ‘একাত্তরে লক্ষ্মীপুরের রায়পুরে রাজাকার কমান্ডার ছিলেন ইউছুফ হারুন। তার নির্দেশে চার শতাধিক মুক্তিযোদ্ধা ও সাধারণ মানুষকে হত্যা করা হয়।’ ইউছুফ হারুনের বিচার ও সর্বোচ্চ শাস্তির দাবি জানান তিনি। সংবাদ সম্মেলনে সাগর সামস রায়পুরের মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার, শহীদ পরিবারের সদস্য ও প্রত্যক্ষদর্শীদের রেকর্ড (ভিডিও) করা বক্তব্য উপস্থাপন করেন। তিনি বলেন, ‘মানবতাবিরোধী অপরাধের বিচারের লক্ষ্যে গঠিত আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল ইউছুফ হারুনের একাত্তরের ভূমিকা নিয়ে তদন্ত শুরু করেছে।’

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here