ভোলার জেলা প্রশাসনের তদন্ত প্রতিবেদন জমা

0
192

ভোলার বোরহানউদ্দিনে পুলিশের গুলিতে ৪ জন নিহত ও পুলিশসহ দেড়শতাধিক আহত হওয়ার ঘটনায় তদন্ত প্রতিবেদন জমা পড়েছে। শনিবার (২৬ অক্টোবর) সকালে ১৫ পৃষ্ঠার প্রতিবেদন জমা দেয় জেলা প্রশাসন গঠিত তিন সদস্যের তদন্ত কমিটি।

তদন্ত প্রতিবেদন হাতে পাওয়ার পরই তা উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের কাছে পেশ করা হয়েছে বলে জানিয়েছে ভোলার জেলা প্রশাসক মাসুদ আলম সিদ্দিক।

এদিকে, ভোলার বোরহানউদ্দিনে গত ২০ অক্টোবরের ওই সংঘর্ষের ঘটনায় নিহত ৪ জনের পরিবারকে ৫ লাখ করে মোট ২০ লাখ টাকা ক্ষতিপূরণ দেওয়া হয়েছে।

আজ শনিবার দুপুরে ভোলা-২ আসনের সংসদ সদস্য আলী আজম মুকুল নিহতদের পিতা-মাতার হাতে নগদ অর্থ তুলে দেন।

এর আগে এমপি মুকুল বোরহানউদ্দিন উপজেলায় তার নিজ বাসভবনে এক সংবাদ সম্মেলনে জানান, ভোলার অভিভাবক সাবেক বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদের পক্ষ থেকে নিহতদের পরিবারকে আর্থিক সহায়তা প্রদান করা হয়।

সংবাদ সম্মেলনে সংসদ সদস্য আলী আজম মুকুল বলেন, ফেসবুকে পোস্ট দেয়াকে কেন্দ্র করে সংঘর্ষের ঘটনায় যারা জড়িত তাদের কাউকে ছাড় দেয়া হবে না। ইতোমধ্যে প্রশাসনের পক্ষ থেকে গঠিত তদন্ত টিমের তদন্ত রিপোর্ট জমা দেয়া হয়েছে। পাশাপাশি পুলিশ প্রশাসনের পক্ষ থেকে গঠিত তদন্ত টিমের রিপোর্ট অচিরেই পাওয়া যাবে। পুরো ঘটনাটিকে নিয়ে গভীর পর্যবেক্ষণ করা হচ্ছে। যারা দোষী সাব্যস্ত হবে তাদের আইনের আওতায় আনা হবে।

এ সময় এমপি মুকুল দোষীদের খুঁজে বের করার ক্ষেত্রে সংবাদ মাধ্যমের সহায়তাও কামনা করেন।

ভোলার সর্বদলীয় মুসলিম ঐক্য পরিষদের ৬ দফা দাবি বাস্তবায়নের আশ্বাস দিয়ে মুকুল বলেন, নিহতদের পরিবারকে মানবিক সহায়তা করা হয়েছে। আহতদেরকে চিকিৎসা সাহায়তা দেয়াসহ সবগুলো দাবিই পর্যায়ক্রমে বাস্তবায়ন করা হবে।

উল্লেখ্য, বোরহানউদ্দিনের বাসিন্দা বিপ্লব চন্দ্র শুভ নামক ফেসবুক আইডি থেকে আল্লাহ ও নবীকে নিয়ে কটূক্তি করাকে কেন্দ্র করে গত ২০ অক্টোবর সমাবেশের ডাক দেয় সর্বদলীয় মুসলিম ঐক্য পরিষদ। পরে সমাবেশকে কেন্দ্র করে জনতা ও পুলিশের মধ্যে সংঘর্ষ হয়। এক পর্যায়ে পুলিশ ফাঁকা গুলি চালালে চারজন নিহত হয়। এ ছাড়া ১০ পুলিশসহ দেড় শতাধিক লোক আহত হয়। ওই ঘটনার পর থেকে ৬ দফা দাবি জানিয়েছে আসছে সর্বদলীয় মুসলিম ঐক্য পরিষদ।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here