জামালপুরে বোরো ধানে ব্লাস্ট রোগ, দিশেহারা কৃষক

0
123
জামালপুর প্রতিনিধি: জামালপুরে বোরো ধানে ব্যাপক আকারে ব্লাস্ট রোগ দেখা দেয়ায় নষ্ট হয়ে যাচ্ছে শত শত বিঘা জমির ব্রি-২৮ জাতের ধান। ছত্রাক জনিত ব্লাস্ট রোগে আক্রান্ত হওয়ায় ফলন বিপর্যয়ের আশঙ্কায় দিশেহারা হয়ে পড়ছে কৃষকরা। ব্লাস্ট নামক এই রোগের আক্রমণ থেকে ধান রক্ষায় কৃষকদের সচেতন করতে লিফলেট, প্রচারসহ কৃষকদেরকে সচেতন করতে নানা পরামর্শ দিয়ে আসছে স্থানীয় কৃষি বিভাগ।
স্থানীয় কৃষি বিভাগ জানিয়েছে, চলতি ইরি-বোরো মৌসুমে জামালপুরে ১ লাখ ৩১ হাজার ৮শ’৩০ হেক্টর জমিতে বোরো ধান চাষ হয়েছে। এর মধ্যে ৪৭ হাজার হেক্টর জমিতে চাষ হয়েছে উফশি জাতের ব্রি-২৮ জাতের ধান। আগাম জাতের এই ধানে দেখা দিয়েছে ব্লাস্ট রোগ।
কৃষকরা জনিয়েছেন, উচ্চ ফলনশীল ব্রি-২৮ উপশী জাতের ধান আগাম চাষ করে প্রাকৃতিক দুর্যোগ কবল থেকে রক্ষার পাশাপাশি ভাল দাম পাওয়ার আশায় বছরের পর বছর এই জাতের ধান চাষ করে আসছে তারা।
চলতি মসৌমে ধান পাকার ঠিক আগ মুহূর্তে ব্লাস্ট রোগে আক্রান্ত বোরো ধানের ডগায় পচন ধরে ধান চিটা হয়ে যাচ্ছে। কৃষকরা ব্লাস্ট রোগের আক্রান্ত ধান রক্ষা করতে কৃষি কর্মকর্তাদের পরামর্শ নেয়ার পাশাপাশি পর্যাপ্ত কীটনাশক ও বালাইনাশক ব্যবহার করেও তাদের কষ্টার্জিত বছরের প্রধান ফসল বোরো ধান রক্ষা করতে পাচ্ছে না। এই ধান ঘরে না উঠায় বছরের খাবার নিয়েও চিন্তিত কৃষকরা।
জামালপুর কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর উপ-পরিচালক কৃষিবিদ মোঃ আমিনুল ইসলাম বলেন, উপশী জাতের ব্রি-২৮ জাতের আগাম ধান পুরনো জাতের। এই জাতটি পুরনো হওয়ায় রোগ-বালাইয়ের ধারণ ক্ষমতা কমে গেছে। রাত এবং দিনের তাপমাত্রার পার্থক হওয়ায় কারণে এই রোগে প্রভাব বিস্তার করায় ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছে কৃষকরা। ্এর পরও ব্লাস্ট রোগ প্রতিরোধে কৃষি বিভাগের সকল শ্রেণীর কর্মকর্তারা কৃষকদের সচেতন করে যাচ্ছে।
তবে স্থানীয় কৃষি বিভাগ ১৪ হাজার হেক্টর জমির ধানে ব্লাস্ট রোগে আক্রমনের কথা স্বীকার করলেও এই রোগে ব্যাপক আকারে ছড়িয়ে পড়েছে বলে জানিয়েছে এঅঞ্চলের কৃষকরা ।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here