বাংলাদেশ শ্রীলংকার শত্রু না : বললেন মাশরাফি

0
449

নিদাহাস ট্রফির সেই উত্তেজনা, শ্রীলঙ্কার কোচ চন্ডিকা হাথুরুসিংহের সঙ্গে বাংলাদেশ দলের ইতিহাস, দুই দলের মধ্যে ক্রিকেটীয় প্রতিদ্বন্দ্বিতা—এসবের প্রভাব নিশ্চয়ই থাকবে দুবাইয়ে আজকের সূচনা ম্যাচে। বাংলাদেশ অধিনায়ক অবশ্য পেশাদারির খোলস থেকে বেরোননি। দুটি প্রসঙ্গে তাঁর হুবহু বক্তব্য তুলে দিলেই বুঝবেন সেটি।

শ্রীলঙ্কার সঙ্গে সাম্প্রতিক অতীত নিয়ে আলোচনাকে অপ্রয়োজনীয় মনে করেন বাংলাদেশ অধিনায়ক

এবারের এশিয়া কাপ কি তাহলে জ্বলবে দুটি লড়াইয়ের আগুনেই! একটি অবশ্যই ভারত-পাকিস্তান। অন্যটি? সাম্প্রতিক অতীত বলছে, অন্যটি বাংলাদেশ-শ্রীলঙ্কা।
কাল টুর্নামেন্টের আনুষ্ঠানিক সংবাদ সম্মেলনের পর মাশরাফি বিন মুর্তজা এ নিয়ে কী বলেন, সেটি ঘিরেই বাংলাদেশি সাংবাদিকদের কৌতূহলও থাকল বেশি।

শ্রীলঙ্কার সঙ্গে সাম্প্রতিক প্রতিদ্বন্দ্বিতা—
মাশরাফি: কাল (আজ) প্রতিপক্ষ ভারত বা পাকিস্তান থাকলেও জেতার ইচ্ছেটা একই রকম থাকত। কাল (আজ) অনেক বড় ম্যাচ। কাল (আজ) যদি ভালো করতে পারি, আমাদের জন্য ভালো হবে। দ্বিতীয় ম্যাচটা আত্মবিশ্বাসের সঙ্গে খেলতে পারব। প্রথম ম্যাচ সব সময়ই খুব গুরুত্বপূর্ণ। প্রথম ম্যাচে ভালো করলে শারীরিক ও মানসিকভাবে মানিয়ে নিতে সহজ হবে।

নিদাহাস ট্রফিতে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে ম্যাচের উত্তেজনা—
মাশরাফি: এসব তো খেয়াল থাকে না। ভালো খেলে জেতা, এটাই উদ্দেশ্য থাকে। এর বাইরে কী হয়েছে, এসব ভাবার বিষয় নয়। আর এগুলোর মনে হয় না মাঠে কোনো গুরুত্ব আছে। কেউ তো কারও শত্রু না। দলের জন্য খেলতে গেলে উত্তেজনার বশে মাঠে কিছু ঘটনা ঘটে যায়। সেসব আসলে কেউ বয়ে বেড়ায় না। এগুলো অপ্রয়োজনীয় জিনিস।

মাশরাফি বারবারই বোঝাতে চাইলেন, শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে লড়াইটা তাঁর কাছে আর দশটা ম্যাচের মতোই। অ্যাশেজ বা ভারত-পাকিস্তান লড়াইয়ের ঝাঁজ যে এখন এই দলের খেলায়ও ভর করেছে, সেটি তাঁর অজানা নয়। তবে এসব নিয়ে বাড়তি ভাবনাটা অপ্রয়োজনীয় মনে করেন অধিনায়ক, ‘এসব না ভালো খেলতে সহায়তা করে, না খারাপ খেলার কারণ হতে পারে। এগুলো না আমাদের উদ্বিগ্ন করে, না ওদের উদ্বিগ্ন করে। অপ্রয়োজনীয় বিষয়গুলো বাদ দিয়ে কাল (আজ) যে পরিকল্পনা নিয়ে নামতে চাই, সেটা যেন বাস্তবায়ন করতে পারি।’

আমিরাতের তাপমাত্রাকে কাল বড় চ্যালেঞ্জ বলেছেন ভারত অধিনায়ক রোহিত শর্মাও। এই তাপমাত্রার সঙ্গে মানিয়ে নিতেই তারা চেয়েছিল কয়েকটা দিন আগে সেখানে যেতে। ইংল্যান্ড সফরের জন্য রোহিতদের সেই ইচ্ছা পূরণ হয়নি। তবে বাংলাদেশ কিন্তু অন্যদের তুলনায় একটু আগেই দুবাই গেছে। মাশরাফিও তাপমাত্রাকে কোনো অজুহাত হিসেবে দাঁড় করাতে রাজি নন, ‘আমাদের ইতিবাচক থাকতে হবে। এসবের সঙ্গে মানিয়ে নিতে পারলে ভালো দল হয়ে ওঠা যায়। এসব নিয়ে চিন্তা না করে মাঠে নামলেই কাল (আজ) ভালো একটা ম্যাচ হবে।

বড় আসরে বাংলাদেশ দলের যা-ই সাফল্য, সেগুলো মাশরাফির নেতৃত্বেই এসেছে। এশিয়া কাপেও তাই অধিনায়ক মাশরাফির কাছে থাকছে বাড়তি প্রত্যাশা। তবে অধিনায়ককে তো শুধু আশার ভেলায় ভাসলেই হয় না, বাস্তববাদীও হতে হয়। মাশরাফি তাই বললেন, ‘আমরা ইতিবাচক, চেষ্টা করছি ভালো কিছু করতে। সর্বোচ্চ চেষ্টা করেছি আবহাওয়ার সঙ্গে মানিয়ে নিতে। ম্যাচেও সেরাটা দেওয়ারই চেষ্টা করব’, আবার মনে করিয়ে দিলেন, ‘এখানে অনেক চ্যালেঞ্জ। এখানে আমাদের দল প্রথমবারের মতো খেলছে।’

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here