জনবল কাঠামো ২০১৮ সংশোধনের দাবি

0
180
জনবল কাঠামো ২০১৮ সংশোধনসহ গবেষক ও মেধাবীদের শিক্ষকতা পেশায় আকৃষ্ট করার ব্যবস্থা গ্রহণের দাবি জানিয়েছে এম ফিল পিএইচ ডি ডিগ্রি ধারী বাংলাদেশ বেসরকারি কলেজ শিক্ষক সমিতি।
বৃহষ্পতিবার ৫ জুলাই জাতীয় প্রেসক্লাবের ৩য় তলা কনফারেন্স লাউঞ্জে এক সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে এ দাবি জানান।
সংবাদ সম্মেলনে সংগঠনের সভাপতি ড মুহাম্মদ এমদাদুল ইসলাম বলেন, সম্প্রতি শিক্ষা মন্ত্রণালয় জনবল কাঠামো ২০১৮ জারি করেছে। যাতে অনেক ভাল দিক থাকলেও এর কিছু ধারা শিক্ষকদের চরমভাবে হতাশা করেছে। যেমন (এক) জনবল কাঠামো ২০১০ অনুযায়ী প্রভাষক পদে ৪ বছর পূর্তিতে সহকারী অধ্যাপক পদে পদোন্নতি প্রদান করা হতো। অনুপাত নামক কাল প্রথার মাধ্যমে এবং পদোন্নতিবঞ্চিতদের নবম গ্রেড থেকে ৭ম গ্রেড (টাইম স্কেল) উন্ন‌তি করা হ‌তো একই সাথে। কিন্তু জনবল কাঠামো ২০১৮ অনুযায়ী সপ্তম গ্রেডে উন্নতি হতে হলে প্রভাষক পদে ১৬ বছর সন্তোষজনকভাবে অতিক্রম করতে হবে অর্থাৎ একজন প্রভাষক সঠিক সময়ে পদোন্নতি পেলেন না শুধুমাত্র টাইমস্কেল এর জন্য তাকে ১৬ বছর অপেক্ষা করতে হবে।
(২ ) জনবল কাঠামো ২০১০ অনুযায়ী  সহকারী অধ্যাপক পদে ১২ বছরের অভিজ্ঞতা থাকলে উচ্চমাধ্যমিক কলেজের অধ্যক্ষ স্নাতক কলেজের উপাধ্যক্ষ পদে নিয়োগের জন্য আবেদন করতে পারতেন কিন্তু জনবল কাঠামো ২০১৮ অনুযায়ী উক্ত পদে আবেদন করতে হলে সহকারী অধ্যাপক পদে কমপক্ষে তিন বছরের অভিজ্ঞতা সহ ১২ বছরের শিক্ষকতার অভিজ্ঞতা থাকতে হবে।
তিনি আরো বলেন আবার জনবল কাঠামো ২০১০ অনুযায়ী প্রভাষক সহকারী অধ্যাপক পদে ১৫ বছরের অভিজ্ঞতা থাকলে স্নাতক পর্যায়ের কলেজের অধ্যক্ষ পদে নিয়োগের জন্য আবেদন করতে পারতেন কিন্তু জনবল কাঠামো ২০১৮ অনুযায়ী উক্ত পদে আবেদন করতে হলে উপাধ্যক্ষ পদে কমপক্ষে তিন বছরের অভিজ্ঞতা সহ ১৫ বছরের শিক্ষকতার অভিজ্ঞতা থাকতে হবে।
এ সময় তিনি প্রশ্ন করে বলেন যিনি অনুপাত নামক কাল প্রথার কারনে সহকারী অধ্যাপক হতে পারেন নাই তিনি কোন অপরাধে অধ্যক্ষ বা উপাধ্যক্ষ পদের জন্য অযোগ্য হবেন? অধ্যক্ষ পদে নিয়োগের পথ কেন তাদের বন্ধ হয়ে যাবে?
তিনি আরো বলেন ২০১০ সালের এমপিও নীতিমালা (গ ১১) অনুচ্ছেদ অনুযায়ী উচ্চতর ডিগ্রির জন্য উচ্চতর স্কেল প্রদানের কথা থাকলেও জনবল কাঠামো ২০১৮ তে উক্ত অনুচ্ছেদ বাতিল করা হয় যার মাধ্যমে দেশের কোন শিক্ষক যেন কোনরকম গবেষণায়  পাকাপোক্ত না হয়।যার কারণে দেশের অনেক মেধাবী শিক্ষক গবেষণার প্রতি আগ্রহ হারিয়ে ফেলছেন।
এসময় তিনি সরকারকে আহ্বান করে বলেন শিক্ষার মানোন্নয়নের জন্য শিক্ষকদের গবেষণা করার সুযোগ সুবিধা দিন।
সংবাদ সম্মেলনে আরও উপস্থিত ছিলেন সংগঠনের সিনিয়র যুগ্ন সাধারন সম্পাদক মোঃ রেজাউল করিম বুলবুল, উপাধ্যক্ষ আ জব্বার মিয়া প্রমুখ।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here