নিষিদ্ধ সারিকা!

0
159

নাটকের শুটিং ফাঁসানোর অভিযোগে ছয় মাসের জন্য নিষিদ্ধ হলেন ছোট পর্দার জনপ্রিয় অভিনেত্রী সারিকা! টেলিভিশন প্রোগ্রাম প্রডিউসারস্ অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (টেলিপ্যাব) তার উপর এই নিষেধাজ্ঞা জারি করেন। গত ২৮শে জুলাই সংগঠনটির কার্যনির্বাহী সভায় সর্বসম্মতিক্রমে এই সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে।

সারিকাকে নিষিদ্ধ কার্যকর শুরু হয়েছে বুধবার (১ আগস্ট) থেকে। অশিল্পী সুলভ আচরণের জন্য সারিকাকে নিষিদ্ধ করা হয়েছে বলে সংবাদে জানিয়েছে টেলিপ্যাব।

নিষিদ্ধ ছয় মাসের মধ্যে এই অভিনেত্রী কোনো নাটক, মিউজিক ভিডিও, বিজ্ঞাপনসহ সমিতির কোনো কর্মকাণ্ডে অংশ নিতে পারবেন না বলে জানানো হয়েছে।

জানা যায়, গত ২১শে মার্চ নাটকের শুটিংয়ে নেপাল যাওয়ার কথা ছিল অভিনেত্রী সারিকার। সে অনুযায়ী সারিকা সিডিউল দিয়েছিলেন। অগ্রিম পারিশ্রমিক ৫০ হাজার টাকা, রিটার্ন টিকিট ও নাটকের চিত্রনাট্য দেয়া হয়েছিল তাকে।

আগের দিন ২০শে মার্চ সারিকার সঙ্গে শুটিং ইউনিট যোগাযোগ করলে তিনি জানান, সময়মতো বিমানবন্দরে পৌঁছাবেন। যথারীতি ২১শে মার্চ শুটিং ইউনিট নেপালে রওনা দেয়ার উদ্দেশ্যে বিমানবন্দর গেলে সারিকাকে পাওয়া যায়নি। তখন যোগাযোগ করলে সারিকার মুঠোফোন বন্ধ পাওয়া যায়। তারপর সারিকা ছাড়াই শুটিং ইউনিট নেপাল পৌঁছায়।

কিন্তু তিনি না থাকায় তাকে নিয়ে পরিকল্পনা করা নাটকগুলো নির্মাণ করা সম্ভব হয়নি। ফলে প্রযোজক আর্থিকভাবে ক্ষতির সম্মুখীন হন। নাটকগুলো নির্মাণের কথা ছিল নির্মাতা দীপু হাজরা ও আসাদুজ্জামান আসাদের।

পরে নেপাল থেকে ফিরে প্রযোজক বোরহান খান টেলিভিশন প্রোগ্রাম প্রডিউসারস্ অ্যাসোসিয়েশনে সারিকার বিরুদ্ধে লিখিত অভিযোগ করেন। অভিযোগের ভিত্তিতে টেলিভিশন প্রোগ্রাম প্রডিউসারস্ এসোসিয়েশন এবং অ্যাক্টর ইকুইটি নানাভাবে সারিকার সঙ্গে যোগাযোগ করলেও কোনো সদুত্তর পায়নি।

বাধ্য হয়ে সারিকাকে নিষিদ্ধের সিদ্ধান্ত নেয় টেলিভিশন প্রোগ্রাম প্রডিউসারস্ অ্যাসোসিয়েশন। সংগঠনটি থেকে পরিষ্কারভাবে লিখিত আকারে জানানো হয়েছে, এই নির্দেশ অমান্য করে সারিকাকে নিয়ে নাটক, মিউজিক ভিডিও, বিজ্ঞাপনসহ এ ধরনের কাজ করলে তার বিরুদ্ধে সাংগঠনিকভাবে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

এ ব্যাপারে জানতে সারিকার মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, নিষিদ্ধের চিঠি এখনো আমারে হাতে এসে পৌঁছায়নি। যদি পাই, আমি যা করণীয় তা-ই করব। প্রয়োজন হলে ক্ষমা চাইব।

ছয় মাস নিষিদ্ধ হওয়ার ব্যাপারে  টেলিপ্যাবের সভাপতি মামুনুর রশীদ বলেন, এ ধরনের বিশৃঙ্খলা করেও ফোন ধরেননি, চিঠির কোনো উত্তরও দেননি সারিকা। বাধ্য হয়েই আমাদের এই ব্যবস্থা নিতে হয়েছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here