দেশের মানুষ আমাকে ক্ষমতায় দেখতে চায়, বাংলাদেশের মানুষকে মুক্তি দিতে চাই: এরশাদ

0
317

দেশের মানুষ আবারও হুসেইন মোহাম্মদ এরশাদকে ক্ষমতায় দেখতে চায় বলে জানিয়েছেন জাতীয় পার্টির মহাসচিব এ বি এম রুহল আমিন হাওলাদার, এমপি।

দেশের মানুষ আবারও হুসেইন মোহাম্মদ এরশাদকে ক্ষমতায় দেখতে চায় বলে জানিয়েছেন জাতীয় পার্টির মহাসচিব এ বি এম রুহল আমিন হাওলাদার, এমপি।

বুধবার নাটোরে জাতীয় পার্টির রাজশাহী বিভাগীয় তৃণমূল প্রতিনিধি সম্মেলনে তিনি এ কথা বলেন।

তিনি বলেন, দেশের প্রধান দুই দলের শাসনের চেয়ে এরশাদের শাসন ব্যবস্থা ছিল গণতান্ত্রিক ও গ্রহণযোগ্য। এ জন্য জাতীয় পার্টিকে শক্তিশালী করতে হবে। আর যারা এরশাদের পতন আন্দোলন করেছিলেন তারা এখন অনুতপ্ত।”

স্থানীয় জেলা পরিষদ মিলনায়তনে জেলা জাতীয় পার্টির সভাপতি সাবেক এমপি মজিবর রহমান সেন্টুর সভাপতিত্বে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন, জাপা চেয়ারম্যান এরশাদের উপদেষ্টা বাদল খন্দকার, কেন্দ্রীয় নেতা সাবেক এমপি তাজুল ইসলাম চৌধুরী, সাবেক এমপি অ্যাডভোকেট তোফাজ্জল হোসেন, নাটোর-১ আসনের সংসদ সদস্য আবু তালহা, আশরাফুল আলম খান ডাবলু, রাজশাহী জেলা জাপা সাধারণ সম্পাদক সাহাবুদ্দিন বাচ্চু প্রমুখ।

এর আগে জাতীয় পার্টির মহাসচিব রুহল আমিন হাওলাদারকে লালপুর উপজেলার গোধরা এলাকায় নাটোর-১ আসনের সংসদ সদস্য আবু তালহার পক্ষ থেকে স্থানীয় নেতাকর্মীরা ফুল দিয়ে শভেচ্ছা জানান।

পরে মোটর শোভাযাত্রাসহ নেতাকর্মীরা নাটোর জেলা পরিষদ মিলনায়তনে তৃণমুল বিভাগীয় সম্মেলনে যোগ দেন।

শেষ নির্বাচনে ক্ষমতায় যেতে চাই: এরশাদ

মঙ্গলবার ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউটে জাপার যৌথসভায় বক্তৃতা করেন এরশাদ—ফোকাস বাংলা

জাতীয় পার্টির (জাপা) চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ বলেছেন, আগামী নির্বাচন তার জীবনের ‘শেষ ভোট’। বয়সের কারণে এরপর আর নির্বাচনে লড়তে পারবেন না বলে মনে করছেন ৮৮ বছর বয়সী সাবেক এই রাষ্ট্রপতি।

‘জীবনের শেষ নির্বাচনে’ জয়ী হতে সর্বোচ্চ পরিশ্রম করবেন জানিয়ে এরশাদ আরও বলেছেন, ক্ষমতায় না গিয়ে তিনি মরতে চান না।

মঙ্গলবার রাজধানীর কাকরাইলে ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউট মিলনায়তনে জাপার যৌথসভায় এসব কথা বলেন দলের চেয়ারম্যান এরশাদ।

গত মাসে রংপুর সিটি করপোরেশন নির্বাচনে মেয়র পদে বিজয়ী জাপা রাজধানীতে মহাসমাবেশ করার ঘোষণা দিয়েছে। এ কর্মসূচি সফল করতে মঙ্গলবার এ যৌথসভার আয়োজন করা হয়।

এরশাদ বলেন, ‘ দেখাতে চাই জাতীয় পার্টি শক্তিশালী দল।’

বিএনপিবিহীন দশম সংসদ নির্বাচন ‘বর্জনের ঘোষণা’ দিয়েছিলেন এরশাদ। তবে তার স্ত্রী রওশন এরশাদের নেতৃত্বে জাপার একাংশ নির্বাচনে অংশ নিয়ে ৩৪ আসন পেয়ে প্রধান বিরোধী দল হিসেবে আত্মপ্রকাশ করে।

নির্দলীয় সরকারের দাবিতে গত নির্বাচন বর্জন করা বিএনপি এবার ‘সহায়ক সরকারের’ দাবি জানাচ্ছে। এরশাদ আশঙ্কা প্রকাশ করেন, ‘সামনে আবারও একটা অস্থিতিশীল পরিস্থিতি সৃষ্টি হতে যাচ্ছে।’

দলের নেতাকর্মীদের প্রস্তুত হতে নির্দেশ দেন এরশাদ। জাপা চেয়ারম্যান বলেন, নির্বাচনী ব্যয় নিয়ে তিনি ভাবছেন না। দলের নেতাদেরও টাকা-পয়সা নিয়ে দুঃশ্চিন্তা করতে মানা করেন তিনি।

এ প্রসঙ্গে এরশাদ বলেন, ‘আমার জীবনের শেষ নির্বাচন…জাতীয় পার্টিকে ক্ষমতায় দেখে যেতে চাই। তার আগে মরতে চাই না।’

ফেব্রুয়ারির মহাসমাবেশে অন্তত পাঁচ লাখ লোকের সমাগম ঘটানোর নির্দেশ দেন সাবেক সেনাশাসক এরশাদ। সেদিন জাপার শক্তিমত্তা প্রকাশের দিন বলে মনে করেন তিনি। এরশাদ বলেন, ‘দুর্বলের সাথে কেউ হাত মেলায় না। ফাইনাল কথা—শক্তি সঞ্চয় করো—হাত এগিয়ে আসবে।’

আওয়ামী লীগের ৯ বছরের শাসনামলে অর্থনৈতিক উন্নতির হলেও ‘মানুষের দুর্দশার’ লাঘব হয়নি বলে দাবি করেন প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ দূত এরশাদ। তিনি বলেন, ‘প্রতিদিন ঢাকায় হাজার হাজার মানুষ আসে কাজের জন্য। কিন্তু কাজ নাই। মানুষ ফুটপাতে শুয়ে থাকে। বাংলাদেশ না-কি, মধ্যম আয়ের দেশ! মধ্যম আয় শুধু আওয়ামী লীগের মধ্যে।’

আওয়ামী লীগ ও বিএনপির প্রতি মানুষ বীতশ্রদ্ধ—দাবি করে এরশাদ আরও বলেন, ‘গ্রামগঞ্জের মানুষ আর আওয়ামী লীগ-বিএনপির কথা বলে না। তাদের মনে জাতীয় পাটি। আওয়ামী লীগের কাছে বিএনপি নিরাপদ নয়। বিএনপির কাছে আওয়ামী লীগ নিরাপদ নয়। জাতীয় পার্টির কাছে সব দল ও মানুষ নিরাপদ।’

সভায় অন্যান্যের মধ্যে বক্তৃতা করেন জাপার কো-চেয়ারম্যান জিএম কাদের, প্রেসিডিয়াম সদস্য পরিবেশ ও বনমন্ত্রী ব্যারিস্টার আনিসুল ইসলাম মাহমুদ, মহাসচিব এবিএম রুহুল আমিন হাওলাদার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় প্রতিমন্ত্রী মসিউর রহমান রাঙ্গা, শ্রম প্রতিমন্ত্রী মুজিবুল হক চুন্নু এবং সৈয়দ আবু হোসেন বাবলা এমপি প্রমুখ।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here