স্কুল বন্ধ-আন্দোলন চালু, ছড়িয়েছে সারাদেশে

0
1201

দেশইনফো ডেস্ক: স্কুল বন্ধের ঘোষণার পরও আন্দোলন চালু রেখেছেন শিক্ষার্থীরা। নিরাপদ সড়কের দাবিতে পঞ্চম দিনের মতো আন্দোলনে নেমেছে শিক্ষার্থীরা। ব্যানার ফেস্টুন হাতে থাকা শিক্ষার্থীদের শ্লোগানে মুখর হয়ে উঠেছে রাজপথ।

নৌমন্ত্রী শাজাহান খানের পদত্যাগ এবং ঘাতক বাসচালকের ফাঁসিসহ ৯ দফা দাবিতে শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভের মুখে গত কয়েক দিন ধরে অচল রয়েছে ঢাকা।

সকালে ফাঁকা সড়কে দুয়েকটি গাড়ি চলতে দেখা গেছে। সেগুলোতেও উঠতে হচ্ছে অনেক কষ্ট করে। ফলে নগরবাসীকে চরম দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে।

সকালে মিরপুর থেকে যাত্রাবাড়ী, উত্তরা, বাড্ডা ও এয়ারপোর্ট, দনিয়া থেকে উত্তরা পর্যন্ত বিভিন্ন সড়কে দুয়েকটি গাড়ি চলছে। সেগুলোতে অনেক ঠেলাঠেলি করে অফিসগামীদের উঠতে হচ্ছে চরম ভোগান্তির মধ্যে। তবে স্কুল-কলেজ বন্ধ থাকায় সকালে সড়কে কোনো স্কুল-কলেজগামী শিক্ষার্থীদের দেখা যায়নি।

এদিকে সড়ক দুর্ঘটনায় দুই শিক্ষার্থীর মৃত্যুর ঘটনায় উদ্ভূত পরিস্থিতিতে আজ সারা দেশের সব ধরনের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার। বুধবার বিকালে এ তথ্য সাংবাদিকদের জানিয়েছেন শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ। পাশাপাশি এ সিদ্ধান্তের বিষয়টি নিশ্চিত করেছে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ও।

এদিন যাত্রাবাড়ী শনিরআখড়া এলাকায় উল্টোপথে আসা দ্রুতগতির একটি পিকআপ (মাঝারি ট্রাক) ফয়সাল নামে আন্দোলনরত এক শিক্ষার্থীকে চাপা দিয়ে দ্রুত পালিয়ে যায়। আহতাবস্থায় তাকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। এ ঘটনায় শিক্ষার্থীরা আরও বিক্ষুব্ধ হয়ে ওঠে।

এদিকে, দুর্ঘটনার নামে সহপাঠীদের হত্যার বিচার ও পরিবহন নৈরাজ্যের প্রতিবাদে চলমান আন্দোলনে দেশের শিল্পীসমাজ একাত্মতা ঘোষণা করেছেন। বৃহস্পতিবার বিকালে শাহবাগ চত্বরে সরজ‌মি‌নে গি‌য়ে দেখা যায় অবস্থানরত শিক্ষার্থীদের সাথে একাত্মতা ঘোষণা করেন তারা।

 এ সময় উপস্থিত ছিলেন কণ্ঠশিল্পী কোনাল পারভেজ সাজ্জাদ, আরজে টুটুল কন্ঠ শিল্পী মুনি চৌধুরী , কণ্ঠ শি‌ল্পি নও‌রিন , নও‌শিন , ব্রাউ‌নিয়া, সা‌ব্বির জামান, আ‌রিফ, গি‌তিকার জিবক বরুয়া,  প্রমূখ।

কণ্ঠশিল্পী পারভেজ সাজ্জাদ বলেন, বাচ্চাদের আন্দোলন যৌক্তিক তাদের উৎসাহ দিতে আমরা এখানে এসেছি এ আন্দোলনের কারণে অনেক দুর্ভোগ হলেও কেউই বিরক্তি ফিল করছে না আর আমাদের অনেক কিছু শিখিয়েছে কিভাবে নিয়ম মেনে চলতে হয়। আরজে টুটুল বলেন, বাচ্চারা যে নিয়ম মানার প্রথা চালু করেছেন তা যেন আমরা ধরে রাখি আমরা চাই এর যৌক্তিক সমাধান। কণ্ঠশিল্পী কোনাল বলেন, এই কোমলমতি ছাত্রছাত্রীদের কাছেআমরা আশা কর‌বো সরকার এসব দা‌বি অ‌তি দ্রুত বাস্তবায়ন কর‌বেন।

সারাদেশে এই বিক্ষোভ ছড়িয়ে পড়েছে।

গাজীপুর: বেলা সাড়ে ১১টার দিকে ভাওয়াল বদরে আলম সরকারি কলেজ, এএইচএম আরিফ কলেজ (কোনাবাড়ি), চান্দনা চৌরাস্তা উচ্চ বিদ্যালয় অ্যান্ড কলেজ, গাজীপুর সিটি কলেজ, কাজীম উদ্দিন উচ্চ বিদ্যালয় অ্যান্ড কলেজসহ আশপাশের স্কুল-কলেজের কয়েক হাজার শিক্ষার্থী মহাসড়ক অবরোধ করে। অবরোধের কারণে প্রায় দুই ঘণ্টাব্যাপী ঢাকা-টাঙ্গাইল, ঢাকা-ময়মনসিংহ ও ঢাকা-গাজীপুর সড়কে যান চলাচল বন্ধ থাকে। এতে দুর্ভোগে পড়েন হাজার হাজার যাত্রীসাধারণ। এছাড়া গাজীপুরের টঙ্গীর কলেজগেট, কোনাবাড়ি এলাকায়ও বিক্ষোভে নামে বিভিন্ন কলেজ ও স্কুলের শত শত শিক্ষার্থী।

নারায়ণগঞ্জ: নারায়ণগঞ্জে পরিবহন শ্রমিকরাও সকাল থেকে ৬ ঘণ্টা ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়ক আটকে রেখে বিক্ষোভ করেন। সেখানে রাস্তায় শিক্ষার্থীদের মারধর করার ঘটনাও ঘটেছে।

ময়মনসিংহ: জেলা মোটর মালিক সমিতির বাস বিভাগের সাধারণ সম্পাদক বিকাশ সরকার জানান, ময়মনসিংহ থেকে ঢাকাগামী সব ধরনের যাত্রীবাহী বাস চলাচল বন্ধ রাখা হয়েছে। পরিবেশ স্বাভাবিক থাকলে পরে বাস চলাচলের সিদ্ধান্ত নেয়া হবে।

এদিকে নেত্রকোনা, শেরপুর থেকেও বাস চলছে না। তবে ময়মনসিংহ জেলার অভ্যন্তরীণ রুটে যথারীতি বাস চলাচল করছে। সকালে নগরীর আন্তঃজেলা মাসকান্দা বাস টার্মিনালে এসে সব ধরনের যান চলাচল বন্ধ দেখা যায়। কিন্তু সেখানে প্রচুর যাত্রী রয়েছে বলে জানান স্থানীয়রা।

চট্টগ্রাম: নিরাপত্তার অভিযোগে দেশের সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ছুটি ঘোষণা করা হলেও নিরাপদ সড়কের দাবিতে শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভ থামছে না। বৃহস্পতিবার সকাল ১০টা থেকে জিইসি মোড়, গরিবুল্লাহ শাহ মাজার, ওয়াসা এলাকায় কয়েকশ শিক্ষার্থী বৃষ্টিতে ভিজে মিছিল করে রাস্তায় নেমে আসেন। এ সময় তারা বেশ কিছু অটোরিকশা, বাসের লাইসেন্স দেখতে গেলে তর্কবিতর্কে জড়িয়ে পড়েন। এতে সড়কে গাড়ি চলাচল একেবারেই কমে যায়। অনেক গাড়ি আগের মোড়ে ঘুরিয়ে গলিপথে গন্তব্যে যেতে দেখা যায়। বিপুলসংখ্যক পুলিশ ছাত্রদের বুঝিয়ে গাড়ি চলাচল স্বাভাবিক রাখার চেষ্টা করতে দেখা গেছে।

রাজশাহী: সকালে নগরীর সাহেববাজার জিরোপয়েন্টে এ বিক্ষোভ ও মানববন্ধন শুরু হয়। দুপুর ১টা পর্যন্ত চলে। এদিকে পূর্ব ঘোষণা অনুযায়ী, এদিন সকাল ১০টার দিকেই জিরোপয়েন্টের রাস্তায় জড়ো হতে থাকেন শিক্ষার্থীরা। হাতে নানা প্ল্যাকার্ড নিয়ে তারা বিক্ষোভ করতে থাকেন। এতে সড়কে যান চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। তীব্র যানজট দেখা দেয় নগরীর প্রাণকেন্দ্র সাহেববাজার জিরোপয়েন্টসহ আশপাশের সড়কগুলোতে। এ সময় অপ্রীতিকর ঘটনা এড়াতে বিপুলসংখ্যক পুলিশ সদস্য মোতায়েন করা হয়। পরে শিক্ষার্থীরা মানববন্ধনের আয়োজন করেন। মানববন্ধন শেষে তারা আবার বিক্ষোভ করতে থাকেন। দফায় দফায় বিক্ষোভ ছড়িয়ে পড়ে রাজশাহী মহানগরীর বিভিন্ন সড়কেও।

বরিশাল: বেলা ১১টার দিকে নগরের চৌমাথা এলাকার ঢাকা-বরিশাল মহাসড়ক অবরোধ করে এ বিক্ষোভ করছেন তারা। এ সময় সরকারি সৈয়দ হাতেম আলী কলেজ, অমৃত লাল দে কলেজ, সরকারি মহিলা কলেজ, সরকারি মডেল কলেজ, ইনফ্রা পলিটেকনিক কলেজসহ বেশ কিছু কলেজের শিক্ষার্থীরা বিক্ষোভ মিছিল বের করেন। আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা জানান, নৌমন্ত্রী শাজাহান খানের পদত্যাগ এবং ঘাতক বাসচালকের ফাঁসির দাবিসহ ৯ দফা দাবিতে আমরা আন্দোলনে নেমেছি। দাবি আদায় না হওয়া পর্যন্ত আমাদের আন্দোলন চলবে। শিক্ষার্থীরা বরিশাল সড়কে চলাচলরত যানবাহনের চালকদের ড্রাইভিং লাইসেন্স, নগরের বিভিন্ন স্থানে যত্রতত্র গাড়ি পার্কিং করা, অটোরিকশা ও মাহিন্দ্রার (থ্রি-হুইলার) স্ট্যান্ডের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়ারও দাবি জানান।

নাটোর:  বাস চাপায় দুই শিক্ষার্থী নিহত হওয়ার প্রতিবাদে ৯ দফা বাস্তবায়নের দাবিতে নাটোরে বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা বিক্ষোভ মিছিল ও মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করেছে। সকাল সাড়ে ১১ টার দিকে নাটোর প্রেসক্লাবের সামনে বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা সমবেত হয়। সেখান থেকে তারা এক বিক্ষোভ মিছিল বের করে। বিক্ষোভ মিছিলটি শহরের প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করে পুনরায় নাটোর প্রেসক্লাবের সামনে ফিরে আসে। পরে সেখানে তারা মানববন্ধন করে। এ সময় বক্তারা সড়ক দূর্ঘটনায় নিহতদের উপযুক্ত ক্ষতিপূরণ ও ঘটনার জন্য দায়ী ব্যক্তিদের আইনের আওতায় এনে সর্বো”চ শাস্তির দাবি জানান। একই সাথে তারা নিরাপদ সড়কের নিশ্চয়তারও দাবী জানান।

ঠাকুরগাঁও : নিরাপদ সড়কের দাবি ও রাজধানীতে গাড়ি চাপায় ছাত্র হত্যার প্রতিবাদে ঠাকুরগাঁওয়ে বিভিন্ন স্কুল ও কলেজের শিক্ষার্থীরা সড়ক অবরোধ ও মানববন্ধন কর্মসুচি পালন করেছে। সকাল সাড়ে ১১ টা থেকে ১টা পর্যন্ত শহরের চৌরাস্তা মোড়ে অবস্থান নেয় শিক্ষার্থীরা। এসময় বেশ কয়েকটি ট্রাাকের চালকের লাইসেন্স দেখেন শিক্ষার্থীরা। কাগজপত্র না থাকার অভিযোগে একটি ট্রাক পুলিশের কাছে হস্তান্তর করে। এসময় উৎশৃংখল শিক্ষার্থীরা তিনটি ট্রাকের গ্লাস ভাংচুর করতে দেখা গেছে। এ কর্মসুচিতে শহরের বেশ কয়েকটি স্কুল ও কলেজের শিক্ষার্থীরা মানববন্ধন ও সড়ক অবরোধ কর্মসুচিতে অংশ নেয়। এদিকে শিক্ষার্থীদের নিরাপত্তার স্বার্থে সরকারের নির্দেশনা অনুযায়ী জেলার সব শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ ছিল।

পাবনা :  দুপুরে পাবনা সরকারি এডওয়ার্ড কলেজ, সরকারি শহীদ বুলবুল কলেজ, পাবনা কালেক্টরের পাবলিক স্কুল এন্ড কলেজ, জেলা স্কুলসহ বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা পাবনা শহরের প্রধান সড়ক আব্দুল হামিদ রোডে এসে জোর হয়। পরে তারা সড়কে যানজট নিরসনে কাজ করে। এ সময় চালক ও যাত্রীদের ট্রাফিক আইন মেনে চলতে উদ্বুদ্ধ করে শিক্ষার্থীরা। খবর পেয়ে পুলিশ এসে তাদের নিয়মতান্ত্রিক আন্দোলনকে সাধুবাদ জানিয়ে কোন প্রকান বিশৃঙ্খলা না করার অনুরোধ জানান। পরে শিক্ষার্থীরা আগামী শনিবার পাবনায় নিরাপদ সড়কের দাবিতে মানববন্ধন করবে বলে ঘোষণা দেয়।

গোপালগঞ্জ : সড়ক দূর্ঘটনায় দুই শিক্ষার্থী নিহত হবার প্রতিবাদে ও নিরাপদ সড়কের দাবীতে গোপালগঞ্জে মানববন্ধন ও এক ঘন্টা সড়ক অবরোধ করে শিক্ষার্থীরা। শহরের বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা এ কর্মসূচী পালন করে। বেলা ১১টার দিকে স্থানীয় প্রেসক্লাবের সমানে বঙ্গবন্ধু সড়কের উপর দাঁড়িয়ে হাতে হাত ধরে ঘন্টাব্যাপী মানববন্ধন কর্মসূচী পালন করে শিক্ষার্থীরা। এসময় তারা নিরাপদ সড়কের দাবীতে বিভিন্ন ধরনের লেখা প্লাকার্ড প্রদর্শন করে। পরে শিক্ষার্থীরা ওই স্থানে সড়কের উপর বসে পড়ে গোপালগঞ্জ-টুঙ্গিপাড়া সড়ক অবরোধ করে রাখে। এসময় ওই সড়ক দিয়ে যান চলাচল বন্ধ হয়ে গেলে উভয় পাশে আটকা পড়ে সহস্রাধিক যানবাহন।

পরে পুলিশ গিয়ে শিক্ষার্থীদের বুঝিয়ে সড়কের উপর থেকে উঠিয়ে দিলে এক ঘন্টা পর ওই সড়ক দিয়ে যান চলাচল শুরু হয়। এ অবস্থার মধ্যেই সচিবালয়ে নৌপরিবহনমন্ত্রী, তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু, এলজিআরডি প্রতিমন্ত্রী মসিউর রহমান রাঙ্গা, আইজিপি, ডিএমপি কমিশনার, পরিবহন মালিক ও শ্রমিক প্রতিনিধিদের সঙ্গে বৈঠক করেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here