খালেদা জিয়াকে চিকিৎসাহীন অবস্থায় রাখা হয়েছে: রিজভী

0
255


কারাবন্দি বিএনপির চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়াকে তাঁকে চিকিৎসাহীন অবস্থায় রাখা হয়েছে অভিযোগ করে দলটির সিনিয়র যুগ্ম-মহাসচিব অ্যাডভোকেট রুহুল কবির রিজভী বলেছেন, ‘গতকাল দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার সাথে তাঁর পরিবারের লোকেরা দেখা করতে গিয়েছিলেন। সেখানে বেগম জিয়ার শারীরিক অবস্থা দেখে স্বজন’রা ব্যথিত হয়েছেন। তাঁকে চিকিৎসাহীন অবস্থায় রাখা হয়েছে। বাম হাত-পা, হাতের আঙ্গুল নড়াচড়া করতে কষ্ট হচ্ছে। ফিজিওথেরাপিও একরকম বন্ধই করে দেয়া হয়েছে। তাঁর জন্য দক্ষ ও অভিজ্ঞতাসম্পন্ন ফিজিওথেরাপিষ্ট ব্যবস্থা করা হয়নি। দেশনেত্রীকে গভীর স্বাস্থ্য সংকটের মধ্যে রাখাটাই যেন সরকার লক্ষ্য নির্ধারণ করেছে। এই জন্যই দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে চিকিৎসা বঞ্চিত রাখা হচ্ছে।

তিনি বলেন,’রাষ্ট্রযন্ত্র কব্জা করে ক্ষমতার দম্ভ দেখিয়ে আমাদের চেয়ারপারসনকে বন্দী করে রাখা হয়েছে। এটা আইনী লেবাসে প্রতিহিংসা পূরণের নমূনা। আমি আবারও দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার পছন্দানুযায়ী ইউনাইটেড হাসপাতালে তড়িৎ চিকিৎসা ব্যবস্থা গ্রহণ এবং অবিলম্বে নি:শর্ত মুক্তির জোর দাবী জানাচ্ছি।

বুধবার (৩ অক্টোবর) নয়াপল্টনে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে তিনি এসব কথা বলেন।

৩০ সেপ্টেম্বরের জনসভা সফল করায় কারাবন্দি চেয়ারপারসন দলটির নেতাকর্মীদের শুভেচ্ছা জানিয়েছেন জানিয়ে রিজভী বলেন,’দেশনেত্রীর স্বজনরা সাক্ষাৎ শেষে আমাকে জানিয়েছেন-গত ৩০ সেপ্টেম্বর ২০১৮ রবিবার রাজধানীর সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে অনুষ্ঠিত জনসভা সফল করার জন্য বেগম খালেদা জিয়া ঢাকাবাসী, বৃহত্তর ঢাকা জেলাসহ সারাদেশের জনগণের মধ্যে যারা উপস্থিত হয়েছেন তাদেরকে আন্তরিক কৃতজ্ঞতা ও শুভেচ্ছা জানিয়েছেন। তিনি ঢাকা মহানগরী (উত্তর-দক্ষিণ), বৃহত্তর ঢাকা জেলা বিএনপি ও অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মী এবং সারাদেশ থেকে আসা নেতাকর্মীদেরও আন্তরিক ধন্যবাদ ও শুভেচ্ছা জানিয়েছেন।

তিনি বলেন, ‘এছাড়াও বেগম জিয়া সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে বিএনপি’র জনসভা চলাকালে ফরিদপুর জেলাধীন নগরকান্দার ফুলসুতি ইউনিয়ন বিএনপি’র সহ-সভাপতি আব্দুল হান্নান মাতুব্বর হৃদযন্ত্রের ক্রিয়া বন্ধ হয়ে ইন্তেকাল করায় দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়া গভীর শোক ও দু:খ প্রকাশ করেছেন। তিনি মরহুমের বিদেহী আত্মার মাগফিরাত কামনা করেন এবং শোকে ময়িমান পরিবারের সদস্যদের প্রতি গভীর সমবেদনা জানান।

আওয়ামী লীগের ভোট ৪২ শতাংশ, আর বিএনপি’র নাকি ৩০ শতাংশ গতকাল দেয়া প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার রাজনৈতিক উপদেষ্টা এইচটি ইমামের সমালোচনা করে বিএনপির এই নেতা বলেন, ‘এইচ টি ইমাম নামে প্রধানমন্ত্রীর একজন উপদেষ্টা আছেন, যিনি সরকারের গোপন পরিকল্পনা মাঝে মাঝে প্রকাশ করে দেন। ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারীর নির্বাচনে সব দল অংশগ্রহণ করলে তিনি কিভাবে বাছাই করা প্রশাসনের লোকদের দিয়ে প্রতি ভোট কেন্দ্রগুলি নিজেদের আয়ত্বে রাখবেন সেটিও পরবর্তিতে প্রকাশ করেছেন। আওয়ামী সরকারের অনাচারমূলক কর্মকান্ডের নির্দেশদাতা এই এইচ টি ইমাম কিভাবে প্রতিযোগিতামূলক পরীক্ষা ছাড়াই বিসিএস-এ ছাত্রলীগের নেতাকর্মীদের পাশ করানোর পরিকল্পনা করেছিলেন সেটিও একটি সভায় ফাঁস করেছেন।এখন তিনি গায়েবী পরিসংখ্যান ব্যুরোর অধিকর্তা সেজেছেন মুজিব হত্যাকারিদের সহযোগী, এই সাবেক আমলাটি।

তিনি বলেছেন-আওয়ামী লীগের ভোট নাকি ৪২ শতাংশ, আর বিএনপি’র নাকি ৩০ শতাংশ। এইসব উদ্ভট পরিসংখ্যান এইচ টি ইমামের নিজস্ব নাকি তথ্য ও যোগাযোগ উপদেষ্টার তা জাতির জানার আগ্রহ আছে। কারণ এহেন অলৌকিক পরিসংখ্যান এইচ টি ইমাম সাহেবের মাথা থেকে আসাটা যৌক্তিক এই কারণে যে, খন্দকার মোশতাকের সহযোগী হিসেবে কাজ করার জন্য বিব্রতকর অবস্থা কাটাতে এখন প্রধানমন্ত্রীকে খুশি করতে মোসাহেবদের ম্যারাথন দৌড়ে এগিয়ে থাকতে চান।

তিনি বলেন, ‘আগামী জাতীয় নির্বাচনটি যে ভোটার ছাড়াই হবে এইচ টি ইমামের বক্তব্য সেটিরই পূর্বাভাস। এইচ টি ইমাম এখন আওয়ামী সরকারের ‘রাসপুটিন’ হিসেবে কাজ করছেন-সেজন্যই আওয়ামী লীগ এখন গণবিচ্ছিন্ন রাজনৈতিক দল।

আওয়ামী লীগের ওবায়দুল কাদেরের সমালোচনা করে রিজভী আরও বলেন,’ ওবায়দুল কাদের বলেছেন-পুলিশের কাছে নাকি তথ্য আছে বিএনপি আন্দোলনের নামে নাশকতার ছক আঁকছে। সেজন্যই হাতিরঝিল থানায় বিএনপি মহাসচিবসহ জ্যেষ্ঠ নেতাদের নামে মামলা হয়েছে। আমি ওবায়দুল কাদের সাহেবকে বলতে চাই-আপনাদের মতো আপনাদের পুলিশ’রাও এখন গায়েবী তথ্য উৎপাদনের কারখানায় পরিণত হয়েছে। আপনাদের পুলিশ এমনই যে, ঐ মামলায় বর্ণিত ভাংচুর হওয়া গাড়ীর নম্বর জানে না। এছাড়াও সম্প্রতি দায়ের করা অনেক মামলায় দুই বছর আগে মারা যাওয়া বিএনপি নেতার নামেও মামলা দেয়া হয়েছে, হজে। থাকাকালীন অবস্থায়ও মামলা দেয়া হয়, হাসপাতালে শায়িত ৮৩ বছর বয়স্ক বিএনপি নেতার নামে এবং
বিদেশে থাকলেও মামলা দেয়া হয়।

সংবাদ সম্মেলনে বিএনপির ভাইস-চেয়ারম্যান বেগম সেলিমা রহমান,শওকত মাহমুদ,সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক আব্দুস সালাম আজাদ,সহ-দপ্তর সম্পাদক মুনির হোসেন প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here