‘রোহিঙ্গাদের মানবিক আশ্রয় দেওয়ায় প্রশংসিত বাংলাদেশ’

0
299
যুক্তরাজ্যের লন্ডনে অনুষ্ঠিত কমনওয়েলথ সম্মেলনে রোহিঙ্গাদের মানবিক আশ্রয় দেওয়ায় বাংলাদেশ প্রশংসিত হয়েছে বলে জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এটি বর্তমান সরকারের একটি কূটনৈতিক সাফল্য বলে মনে করেন।
বুধবার (২ মে) প্রধানমন্ত্রী তার সরকারি বাসভবন গণভবনে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এসব কথা জানানর। সাম্প্রতিক সৌদি আরব, যুক্তরাজ্য ও অস্ট্রেলিয়া সফর নিয়ে এ সংবাদ সম্মেলন ডেকেছেন প্রধানমন্ত্রী।
তিনি বলেন, রোহিঙ্গা ইস্যুতে বাংলাদেশের পদক্ষেপের প্রশংসা করেছে বিশ্ব সম্প্রদায়। কমনওয়েলথ শীর্ষ সম্মেলনে বাংলাদেশের প্রশংসা হয়েছে, সম্মেলনের ঘোষণায় রোহিঙ্গা বিষয়ক অনুচ্ছেদ যুক্ত হয়েছে। যেটা আমাদের সরকারের কূটনৈতিক সাফল্য বলে মনে করি।
প্রধানমন্ত্রী বলেন, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে যেন ছাত্রীরা পিছিয়ে না থাকে সে বিষয়ে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। দেশের প্রথম সংবিধান প্রণয়নের পরও নারীদের সসমান অধিকার দিয়ে গেছেন ববঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। সবচেয়ে বড় কথা আমাদের সরকার নারীদের শিক্ষায় বেশি গুরুত্ব দিচ্ছে। কারণ নারীদের শিক্ষা-দীক্ষায় উন্নত না করলে দেশ এগিয়ে যাবে না।
তিনি বলেন, আমাদের সরকার নারীদের এগিয়ে নিতে অনেক বেশি পদক্ষেপ হাতে নিয়েছে। যার ফলে নারীরা আগের চেয়ে অনেক বেশি এগিয়ে যাচ্ছে। মূল কথা নারীর ক্ষমতায়নে সবচেয়ে বেশি পদক্ষেপ হাতে নিয়েছে তাঁর সরকার।
শেখ হাসিনা  বলেন, আমরা ১৯৯৬ সালে ক্ষমতায় আসার পর জুডিশিয়াল সার্ভিসসহ সব ক্ষেত্রে নারীদের প্রবেশের সুযোগ করে দেই। যেটা আগে কখনো ছিল না। প্রথম মেয়াদে ক্ষমতায় এসে আমরা নারীদের উন্নয়নে পঞ্চবার্ষিকী পরিকল্পনা হাতে নিয়েছি। এরপর ২০০৮ সালে ক্ষমতায় এসে ষষ্ঠ পঞ্চবার্ষিকী পরিকল্পনা হাতে নিয়ে সেটিও বাস্তবায়ন করেছি।
সফরে অর্থনীতিসহ বিভিন্ন ক্ষেত্রে বাংলাদেশের অগ্রগতির প্রশংসাও বিশ্ব সম্প্রদায়ের কাছ থেকে পেয়েছেন বলে জানান প্রধানমন্ত্রী।
ছাত্রলীগের আসন্ন সম্মেলনে নেতৃত্ব নির্বাচন নিয়ে এক প্রশ্নের জবাবে আওয়ামী লীগ সভাপতি বলেন, সম্মেলন যেভাবে হওয়ার সেভাবেই হবে। এরই মধ্যে প্রার্থীদের বিস্তারিত দেখা হচ্ছে। প্রথমে চেষ্টা করা হবে সমঝোতার। তা না হলে ভোট হয়। মনে রাখতে হবে ভোটের ভালো ও খারাপ দিক দুটোই আছে। কারণ আমরা চাই ছাত্র ও যোগ্য নেতৃত্ব। ভোটের মাধ্যমে যোগ্য নেতৃত্ব না এলে সেটির তো দরকার নেই।
এছাড়া অস্ট্রেলিয়ায় গ্লোবাল সামিট অন উইমেনে প্রাপ্ত ‘গ্লোবাল উইমেন লিডারশিপ অ্যাওয়ার্ড’ দেশের নারী সমাজের প্রতি উৎসর্গ করেন শেখ হাসিনা।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here