ড. ইউনূসকে আদালতে আত্মসমর্পণের নির্দেশ

0
151

ড. মুহাম্মদ ইউনূসকে ৭ই  নভেম্বর পর্যন্ত গ্রেপ্তার বা হয়রানি না করার নির্দেশ দিয়েছেন হাইকোর্ট। এ সময়ের মধ্যে সুবিধাজনক সময়ে নিম্ন আদালতে আত্মসমর্পণ করতেও বলা হয়েছে তাকে।

এক আবেদনের প্রেক্ষিতে আজ বিচারপতি মইনুল ইসলাম চৌধুরী ও বিচারপতি  খোন্দকার দিলীরুজ্জামানের হাইকোর্ট বেঞ্চ এ আদেশ দেন।

ওই সময়ের মধ্যে তাকে গ্রেফতার বা হয়রানি না করার নির্দেশ দিয়েছেন হাইকোর্ট। একই সঙ্গে দেশে এসে ৭ নভেম্বরের মধ্যে সুবিধাজনক সময়ে তাকে নিম্ন আদালতে আত্মসমর্পণ করতে বলা হয়েছে।

সোমবার ড. ইউনূসের ভাই ড.মুহাম্মদ ইব্রাহিমের করা এক রিট আবেদনের শুনানি শেষে বিচারপতি মইনুল ইসলাম চৌধুরী ও বিচারপতি খোন্দকার দিলীরুজ্জামানের হাইকোর্ট বেঞ্চ এ আদেশ দেন।

আদালতে ইউনূসের পক্ষে শুনানি করেন ব্যারিস্টার রোকন উদ্দিন মাহমুদ। আর রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল সাইফুদ্দিন খালেদ।

আদালত সূত্র জানায়, ইউনূস প্রতিষ্ঠিত গ্রামীণ কমিউনিকেশনসে ট্রেড ইউনিয়ন গঠন করার চেষ্টা করেন প্রস্তাবিত গ্রামীণ কমিউনিকেশনস শ্রমিক কর্মচারী ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক আবদুস সালাম, একই সংগঠনের প্রচার সম্পাদক শাহ আলম ও সংগঠনটির সদস্য এমরানুল হক। তখন তাদেরসহ বেশ কয়েকজন কর্মচারীকে চাকরিচ্যুত করে প্রতিষ্ঠানটি। এতে তারা ক্ষতিগ্রস্ত হন।

গত ৩ জুলাই তারা তৃতীয় শ্রম আদালতে ড. ইউনূস, প্রতিষ্ঠানটির ব্যবস্থাপনা পরিচালক নাজনীন সুলতানা ও উপ-মহাব্যবস্থাপক খন্দকার আবু আবেদীনকে বিবাদী করে মামলা করেন। আদালত তাদের ৯ অক্টোবর হাজির হওয়ার নির্দেশ দিয়েছিল। কিন্তু ড. ইউনূস বাদে বাকি দুজন আদালতে হাজিরা দেন।

ড. ইউনূসের আইনজীবী রাজু আহম্মেদ আদালতকে বলেন, যেহেতু বর্তমানে তিনি (ড. মুহাম্মদ ইউনূস) ব্যবসার কাজে বিদেশ অবস্থান করছেন, তাই তার পক্ষে আদালতে উপস্থিত হওয়া সম্ভব ছিল না। তিনি দেশে এলে আদালতে উপস্থিত হবেন।

অবসর গ্রহণের সময়সীমা নিয়ে এক বিতর্কের পর ২০১১ সালে গ্রামীণ ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালকের পদ থেকে ড. মুহাম্মদ ইউনূসকে অপসারণ করা হয়।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here